পদ্মাবতী নিয়ে কেন এত বিতর্ক

এটা একটি পুরনো লেখা। তবু দিলাম। পানিপথের ট্রেইলার বের হয়েছে। ঐতিহাসিক বিতর্কিত প্লট নিয়ে যখন ছবি হয়, অনেক প্রশ্ন তৈরি হয়। পদ্মাবতী নিয়ে লিখেছিলাম যখন এটা মুক্তি পাচ্ছিল না কিছু বিতর্কের কারণে।

জোকার অভিজ্ঞতা

sharmaluna.com , Joker movie

জোকার দেখার আগে জোকার বিষয়ে কিছু সংবিধিবদ্ধ সতর্কিকরণ জানা থাকা জরুরিঃ

১. শিশুদের নিয়ে জোকার দেখতে যাওয়া যাবেনা। সহিংসতার দৃশ্যগুলো এক্কেবারে Raw. একজন মানুষকে খুন এর কারণ বোঝা এবং খুনের পরে খুনীর নির্বিকার প্রতিক্রিয়া দেখানো শিশুর মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ভয়ংকর দীর্ঘমেয়াদে। আমাদের চলচিত্র কর্তৃপক্ষের উচিত সিনেমাহলে আর রেটেড ও আ্যডাল্ট ছবির পোস্টারে ‘শিশুদের জন্য নয়’ লিখতে বাধ্য করা। আধাশিক্ষীত ও কমন সেন্সলেস দর্শকদের শিশুদের মানসিক সুস্থতা রক্ষার দায়িত্ব মাঝে মাঝে রাষ্ট্রের নিতে হয়।

যে ছবির জন্য হিন্দুত্ববাদী ভারত লজ্জিত

কিছু ছবি দেখার পর পরই খুব শান্ত-বিষণ্ণ হতে হতে আবার ভাল বোধ হতে থাকে, প্রচণ্ড দায় বোধ হতে থাকে। মনে হয় সে ছবি সম্পর্কে জানানো উচিত। সবাইকে। ছবিগুলো নিয়ে কথা হওয়া দরকার। আর্টিকেল ১৫ এমন একটি ছবি।

উডি আ্যলেনের ‘ব্লু জেসমিন’ আ্যখ্যান

ব্লাক কমেডি ধারার ব্লু জেসমিন দেখলাম। আবাসন কোম্পানির এক মানি ম্যানেজারের স্ত্রীর উপর নির্মীত ছবি। কী অদ্ভূত না? তাও আবার সত্য ঘটনা অবলম্বনে। ঐ মানি ম্যানেজারের ইউ এস পেনালকোডে ২৫০ বছর জেল হয়েছিল প্রতারণার দায়ে। পরে জেলে বসেই সে আত্মহত্যা করে।

কবির সিং নামাঃ সমস্যা কাহিনী ও চরিত্রে না, পরিচালনায়

মেজাজ এতো খারাপ যে বিস্তারিত লেখা অসম্ভব।

যখন কোন ছবিতে নারী পুরুষের একতরফা মারামারির দৃশ্য বিশেষত পুরুষ মহিলার গায়ে হাত তুলছে এরকম কিছু দেখায়, এবং তাতে দর্শককে তালি দেয়ার জন্য কোন পরিচালক প্ররোচিত করে এবং তাতে সাফল্য পায়, তখন মনে হয়, এই চ বর্গীয় টাইপের ছবি যে বানিয়েছে এবং লিড রোলে যে বা যারা অভিনয় করেছে এরাও আসলে চ বর্গীয়।

সবাই সেপিওসেক্সুয়াল হলে পুরুষতান্ত্রীক, ধর্ষক ও নির্যাতক কারা?

মাঝে মাঝে কিছু বিষয় দেখে হাসি পায়, মেজাজও খারাপ লাগে। এই যেমন ধরুণ, এখন ‘সেপিওসেক্সুয়ালিটি’ নিয়ে খুব কথাবার্তা চলছে। অনেকেই নিজেদের ‘সেপিওসেক্সুয়াল’ হিসেবে চিহ্নিত করছে ফেসবুকে। ব্যাপারটা এমন যে, বিষয়টি সম্পর্কে তারা কেবলই জানল এবং সেই জানা অনুযায়ী তারা এক্কেবারে নিশ্চিত যে তারা অবশ্যই সেপিও। হাস্যকর। বিষয়টি সম্পর্কে দু চার লাইন শুনে, গভীরভাবে না বুঝেই কিন্তু তারা এটা করল। যেন এটা করে সেপিও হয়ে তারা জাতে উঠল।

কবিতার অক্সিজেন মাস্ক

কখনও মুখোশ দেখে দেখে অভ্যস্ত হয়ে গেলে
সংকীর্ণ এঁদো গলির মত মন দেখতে পেলে খুব কাছ থেকে
দমে গিয়ে নিশ্চুপ হয়ে যাই কিছুক্ষণ,
কবিতার অক্সিজেন মাস্ক পরে বেচে উঠতে উঠতে
মনে হয়, এর চেয়ে ভাল ছিল বকের জীবন।

পূজার মত প্রেম

পূজার মত অনবদ্য প্রেম
এখন আর কে দেবে কাকে!
এ ভীষণ ওভারস্মার্ট যুগে জনপ্রিয় কোন
সংজ্ঞায়িত হাস্যকর দামে কে বিকোতে চায়!
এ সীসার ভারী দেয়ালের শহরে 
উদাত্ত বন্ধু মনও আহত ভীষণ।

অনুকবিতা

১।

তোমাতে আমাতে দূরত্ব মহাকালের,
এত কদর্য সহনীয় হল
বিশ্ব চরাচরে বৃষ্টি এলো বলে,
স্বাগতম, হে সুন্দর!

ভাল থেকো – ২

কেবলই যাচ্ছি ক্রমে দূরে আরও দূরে
জীবন যেখানে নিয়ে যায় জোর করে,
ভাল থেকো তুমি গত জন্মের প্রিয়
জল-বর্ষার কোমলতাটুকু নিও।

Follow

Get the latest posts delivered to your mailbox:

Free SSL