শেষ ভরসা (সুইসাইড নোট সিরিজ)

জীবনানন্দ, কাফকা আর শার্লককে
মাথার কাছে রেখে শুতে হয়,
ভরসা মেলে খানিকটা এতে
শূন্য মগজে চলেনা বেশিক্ষণ চিন্তা
যেমন শূন্য হৃদয়ে হয় না পূজা;

মুগ্ধ হবার মন্ত্রণা
সব শুষে নিয়ে মগজ জীবনানন্দ থেকে-
জীবন বুঝে নিতে গিয়ে ভালবেসে ফেলুক
সে পারিজাত ক্ষমতা,
আত্মস্থ করুক তা প্রেমের আবেগে।

কেননা, আমি এক উত্তরাধুনিক অভিশপ্ত মানুষ,
এখন আর অবাক হইনা কিছুতে
হোক সে ফুল ঠোঁটের আগায়
কিংবা বোমা চোখের পাতায়,
আমি মুগ্ধ হতে ভুলে গেছি
ভালবাসতে ভয় পাই
বন্ধনকে আমি সেকেলে বলি
প্রেমকে বলি নোঙ্গর
কবিতাকে বলেছি অচল পয়সা
আমার হয়না কিছু
যায় না কিছু
আসেও না কিছু
কিছুতেই কিছু মেলে না,
আমি শূন্য
আমি নির্লিপ্ত
সব প্রয়োজনীয়তার
অপ্রয়োজনীয় নগ্ন আয়োজনে বিলুপ্ত।

কাফকা, এক কাফকাই হয়তো হতে পারে
আমার এ জীবনের রূপান্তরের নায়ক
মানবিকতার জয়ের বন্দরে পৌছাতে গিয়ে হয়তো
একদিন ঘুম থেকে উঠে দেখবো এই কীট আমি
হয়ে আছি এক অতিকায় সুমহান মানুষ,
যার প্রেরণায় জেগে উঠবে সবুজাভ পৃথিবীর গান।
আর শার্লককে রেখেছি শুধু জানতে চাই বলে
সে মানবিক জীবনে কে আছে প্রেম হয়ে।
প্যারাসাইকোলোজিক্যাল স্টান্ডিং পয়েন্ট-
যা এখনো জানেনি মানুষ;

মগজ, তুমি আরও তীক্ষ্ণ হয়ে থাকো
যত্ন করে তন্ন তন্ন করে খুঁজে দেখো
সে তোমাকে কখন ভাবে,
কখন খোঁজে
কখন তোমার মনন বোঝে
কোথাও যদি একটু লাগে
বাঁচতে তুমিও পারবে তখন
মানুষ হয়ে
মানুষ সয়ে
মানুষ বয়ে;
তাই শার্লক, কাফকা আর জীবনানন্দরাই ভরসা এখন।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Follow

Get the latest posts delivered to your mailbox:

Free SSL