বাঙালি তরুণের হিন্দু-মুসলিম রুমমেট খোজা ও রাননৈতিক ভাবনা

আজ দেয়ালে কিছু পোস্টার দেখলাম ইংরেজি রঙ্গিন কাগজে, “Non-smoker and Only Muslim Roommate wanted”, আবার কোথাও “হিন্দু রুমমেট আবশ্যক” সহ আরো নানারকম ক্রাইটেরিয়াসমৃদ্ধ পোস্টার তাও আবার ইংরেজীতে। তার মানে, তারা আক্ষরিকভাবে শিক্ষিত কাউকে আশা করছে। শিক্ষিত এবং অধূমপায়ী বিষয়টিকে নির্দ্বিধায় স্বাগত জানানো যায় এবং এটুকুই যেখানে যথেষ্ট ছিল সেখানে ধর্মটা এত গুরূত্বপূর্ণ ক্যানো? বিষয়টা আপাতদৃষ্টে সামান্য মনে হলেও একটু ভাবলে রীতিমত ভয়ংকর। গত ৬০ বছরে আমরা বাঙালি এবং বাংলাদেশীরা শিক্ষিত ও দেশপ্রেমিক হবার চেয়ে অনেক বেশি ধার্মিক হয়েছি। এবং আজকের তরুণ সমাজের এই জগাখিচুড়ি মনোভাব এই প্রক্রিয়াকরণের ফসল। ৫২ এর আগে থেকে ৭১ পর্যন্ত যা কিছু হয়েছে তা কিন্তু প্রগতিশীল তরুণদেরই সংগ্রামের ফসল। তখন সবচেয়ে মেধাবী, সেক্যুলার ও সকল ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল তরুণরাই রাজনীতি করত। আর এখন বেশিরভাগ মেধাবী শিক্ষার্থীরাই ধর্মভিত্তিক রাজনীতিকে সমর্থন করে কিংবা তারা রাজনীতি না করলেও সাম্প্রদায়িক মনোভাবের। তাই তারা হিন্দু বা মুসলিম রুমমেট খোঁজে, ভদ্র ও শিক্ষিত হওয়াই শুধু যথেস্ট নয় তাদের কাছে। বুয়েটসহ সকল প্রযুক্তি এবং সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মেধাবী শিক্ষার্থীগুলোর জমজমাট মস্তিষ্কের এক বড় অংশ দখল করে থাকে আজ রবীন্দ্রনাথ, হূমায়ূন আজাদ আর ডারুইনের বদলে ধর্মীয় নেতাদের উসকানিমূলক হাজার বাণী। যা তাদের মানুষ হবার বদলে শুধু ধার্মিক করে রেখেছে।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Follow

Get the latest posts delivered to your mailbox:

Free SSL