বাঙালির বড় ছেলে তত্ত্ব

ভেবেছিলাম লিখব না। কিন্তু যখন দেখলাম ট্রল হচ্ছে, তখন আর না লিখে পারছি না। পরিবারের বড় ছেলে বা বড় সন্তান না আমি, কিন্তু আমার বাবা-দাদা সবাই পরিবারের বড় সন্তান ছিলেন। তাই পরিবারের বড় ছেলের সন্তান হয়ে বুঝি মানুষের অনুভূতি কেমন কাজ করছে।

আমি জানতে চাই ‘এ রকম’ একটি সমাজে আপনি বিপ্লব বলতে কী বোঝেন? ‘এ রকম’ একটি সমাজে বিপ্লব হচ্ছে তাই, যা ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারে জীবনে। সে পরিবর্তনের জন্য যুঝতে হয়। তার পরিবারটি কিন্তু তার নিজেরই একটি Identity, যাকে কোনোভাবে অস্বীকার করা যাবে না। আজ আমি দুনিয়া ঘোরার স্বপ্ন দেখি, সমাজ বদলের চিন্তা করি, নিজের জীবন-যৌবন সাজাতে পারছি, কারণ আমার পেছনে আছেন এ রকম নিজের জীবন পরিবর্তণকারী কিছু বিপ্লবী। যারা ভাত-কাপড়ের জন্য, শিক্ষার জন্য রীতিমতো যুদ্ধ করেছেন। বিপ্লবী তাই তারাই। তারা আমাকে মানে নিজের উত্তর প্রজন্মকে এমনভাবে গড়েছেন, যেভাবে একটি বৃক্ষ রোপণ করা হয়, প্রতিদিন তাকে তারা জল মাটি দিয়ে বড় করেছেন। সে জল মাটি যোগাড় করতেও তারা যুদ্ধ করেছেন। তাই সে সব বড় ছেলে নামক বিপ্লবীদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। Hatts Off!

‘এ রকম’ একটি সমাজ মানে কী? একটা গরিব দেশের নিম্ন মধ্যবিত্ত শিক্ষিত মানুষেরা কী পরিমাণ অর্থনৈতিক ও সামাজিক টানাপড়েনে ভোগে, সেটা গ্রহণযোগ্য ফ্রেমে খুব কাছাকাছি সময়ে মানুষ দেখি নি। মধ্যবিত্ত হিপোক্রেট বটে কিন্তু তাদের টানাপোড়েনটা হিপোক্রেসি নয়। একটা দেশে যেখানে হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয়, অর্থনীতি উতপাদনশীল না, শিক্ষা ব্যবস্থা প্রায়োগিক না, নারী অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে মুক্ত নয়, সেখানে সামন্তযুগীয় উপায়ে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তির ওপরই পরিবারের ৫-১০জন মানুষ নির্ভরশীল হবে, সেটাই তো স্বাভাবিক। আর সেই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি তার সমস্ত শিক্ষা, মানবিকতা ও আবেগানুভূতি নিয়ে নিজের সুখ ও স্বস্তি বিসর্জন দেবে, সেটাও তাই স্বাভাবিক। আসলে আমাদের এই সামন্তযুগীয় System-ই তাকে Out of the Box ভাবতে দেয় না। Out of the Box ভাবাটা হয়ে যায় তখন তার জন্য স্বার্থপরতা ও অমানবিকতা।

‘বড় ছেলে’ নাটকটিকে আসলে Glorify করা হচ্ছে না, Appreciate করা হচ্ছে। আমাদের দেশের ৮০% মানুষই আসলে এরকম বাতাবরণের সঙ্গে পরিচিত। বিশেষত প্রবাসী পরিবারের বড় সন্তানদের দিকে তাকালেই বুঝবেন। দেশের এই ব্যাপক রেমিটেন্সের পেছনে শুধু তাদের ঘামই নয়, অনেক ব্যর্থ প্রেমের গল্পও আছে। কিন্তু তাদের এই আত্মসুখ-স্বস্তি বিসর্জনের কোনো Recognition নেই। সে হয়তো নিজের পরিবারে সম্মানিত তার এই বিসর্জনের জন্য। কিন্তু তা লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে গেছে আজীবন। এই নাটকটি এই বিসর্জন বা সমস্যাকে অনেক বেশি করে এবং পূর্ণভাবে Focus করেছে, Recognize করেছে। আমরা জানি সিরিয়াল বস্তাপচা জিনিস। কিন্তু লোকে তা কেন দেখে? কারণ তারা নিজের জীবনের সঙ্গে সিরিয়ালের ঘটনাবলি Relate করতে পারে। তাদের সমস্যা ও অনুভূতি Recognition পায় । বিনোদন তো আছেই। তাই নাটকটি কাঁদিয়েছে অনেককেই।

অতএব ট্রল করা, মানুষের উচ্ছ্বাস দেখে বিরক্ত হওয়া উচিত নয়। কিছু কিছু মধুর অত্যাচার সহ্য করতে হয়।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন:

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Follow

Get the latest posts delivered to your mailbox:

Free SSL